Header Ads

সৌন্দর্য চর্চা তেজপাতায়


ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখতে

ত্বক উজ্জ্বল করতে

শরীরের দুর্গন্ধ কমাতে

খুশকি দূর করতে তেজপাতা কাজ করে

যদি বলি তেজপাতা ত্বকের বলিরেখা দূর করে তারুণ্য ধরে রাখে তাহলে চমকাবেন না কিন্তু। এর ভেষজগুণে বলি রেখা দূর করার উপাদান আছে বলেই স্বীকার করেন বিউটিশিয়ানেরা। মসলা হিসেবে তেজপাতার ব্যাপক পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা থাকলেও প্রাচীন আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে সৌন্দর্য চর্চায় এর গুরুত্বের কথাও স্বীকার করা হয়েছে। ফলে শত শত বছর ধরে হাতের কাছের যেসব জিনিস দিয়ে সৌন্দর্য চর্চা করে আসা হচ্ছে তেজপাতা সেগুলোর অন্যতম।


এখানে জানিয়ে রাখি, প্রাচীন আয়ুর্বেদ শাস্ত্রই যে সৌন্দর্য চর্চায় তেজপাতার কথা বলেছে তাই নয়। আধুনিক বিজ্ঞানও সেটা স্বীকার করে। তেজপাতা থেকে পাওয়া তেল বিভিন্ন দামি পারফিউম তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া এর বাকল থেকে পাওয়া তেল দিয়ে সাবান তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। এ তো গেল তেজপাতাকে মেশিনে দিয়ে তার তেজকে ভেঙেচুড়ে অন্য একটি জিনিস বানিয়ে তার ব্যবহারের কথা। কিন্তু হাতের কাছে থাকা আস্ত তেজপাতা কীভাবে ব্যবহার করবেন সৌন্দর্য চর্চায় সে বিষয়ে কিছু টিপস দিয়ে রাখি।


ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখতে

অধ্যাপক ডা. আশরাফ চৌধুরী জানাচ্ছেন, তেজপাতার উদ্ভিজ্জ উপাদান ত্বকে বলিরেখা সৃষ্টির জন্য দায়ী ফ্রি র‌্যাডিক্যাল নিষ্ক্রিয় করে দেয়। এর জন্য তিনি মুখে তেজপাতা সেদ্ধ করা পানির ভাপ দিতে বলেছেন। তেজপাতা সেদ্ধ করা পানির ভাপ অ্যান্টি এইজিং সলিউশন হিসেবে কাজ করে বলে জানিয়েছেন তিনি।


ত্বক উজ্জ্বল করতে

বিউটি ক্রিমের দৌরাত্ম্য শেষ হয়নি আমাদের জীবনে। কিন্তু ইতিমধ্যেই আমরা সৌন্দর্য চর্চায় ভেষজে উপাদানের সহায়তা নিচ্ছি ত্বক উজ্জ্বল করতে। অধ্যাপক ডা. আশরাফ চৌধুরী জানাচ্ছেন, তেজপাতা আপনার ত্বক উজ্জ্বল করতে সহায়তা করতে পারে। কীভাবে? বেশি পানিতে তেজপাতা সেদ্ধ করুন। সেদ্ধ পানি ঠান্ডা করুন। তারপর সে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। তেজপাতা সেদ্ধ ঠান্ডা পানি দিয়ে নিয়মিত মুখ ধোয়ায় ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ার পাশাপাশি ব্রণের জন্যও এটি উপকার করবে।


শরীরের দুর্গন্ধ কমাতে

কত কিছুই তো আমরা ব্যবহার করি শরীর থেকে দুর্গন্ধ তাড়াতে। এবার শরীরের দুর্গন্ধ কমাতে প্রায় বিনা পয়সার একটি টিপস দেওয়া যাক আপনাদের। রান্নার জন্য কেনা শুকনো তেজপাতা গুঁড়ো করে নিন। পরিষ্কার এক টুকরো কাপড়ে গুঁড়ো তেজপাতা দিয়ে পুঁটলি বাঁধুন। গুঁড়ো তেজপাতার সেই পুঁটলি কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রাখুন কুসুম গরম পানিতে। তারপর সে পানি দিয়ে স্নান সেরে নিন। শীতে গরম পানিতে স্নান করার অভ্যাস আমাদের আছে। এ সময় এই টিপসটি কাজে লাগিয়ে দেখতে পারেন। একদিন তেজপাতা গুঁড়ো দিয়ে স্নান করলেই হবে না। এটা চালিয়ে যেতে হবে এক নাগাড়ে কিছুদিন।


খুশকি দূর করতে

আপনার প্রিয় ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু ব্যবহার করুন, তাতে কোনো সমস্যা নেই। শুধু মাঝে মাঝে শ্যাম্পুর জায়গায় তেজপাতা সেদ্ধ করা ঠান্ডা পানি দিয়ে মাথা ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। এতে খুশকি দূর হওয়ার পাশাপাশি চুল পড়াও কমে যাবে। চুল পড়ে যাওয়া জায়গাগুলোতে তেজপাতার এসেনশিয়াল ওয়েল ব্যবহার করুন। তাতে চুল আর উঠবে না।


দাঁত উজ্জ্বল করতে

ব্রাশ তো প্রতিদিন করেনই। সেটা অব্যাহত রাখুন। ডা. আশরাফ চৌধুরী জানাচ্ছেন, নিয়ম করে মাঝে মাঝে দাঁতে কাচা তেজপাতা ঘষে নিন। কাচা তেজপাতা মাউথ ওয়াশ হিসেবেও কাজ করবে আপনার মুখে।

Powered by Blogger.