Header Ads

কেন ব্যবহার করবেন শীতে ত্বকের যত্নে ময়েশ্চারাইজার


গরমের উত্তাপ ছাড়িয়ে শীতকাল আমাদের জন্যে এক স্বস্তির নাম! বছরের অন্যান্য ঋতুর তুলনায় শীতকালের আগমন অনেকটাই ভিন্ন হয়ে থাকে আমাদের জন্যে। শীতকালে সবকিছুই স্নিগ্ধ, সুন্দর এবং প্রাণবন্ত মনে হলেও ত্বকের উপর এর প্রভাবটা কিন্তু সব সময় সুন্দর হয়না। শীতের আগমনের সাথে সাথে আমাদের ত্বকও কিন্তু জানান দিতে শুরু করে ছোট বড় নানা ধরনের সমস্যা। তাইনা? এই একটা ব্যপারে আমরা অনেকেই শীতকালকে আগমন জানাতে কিছুটা হলেও দ্বিধা বোধ করি। এর কারণ কী? মূলত শীতকালে আবহাওয়ার আর্দ্রতা এবং রুক্ষতাই এর কারণ। স্কিনে পিগমেন্টেশনের সমস্যা থেকে শুরু করে স্কিন খসখসে হয়ে পড়া, ঠোঁট ফাটার মত সমস্যা দেখে দিতে থাকে। আজকে আমরা জেনে নিব, সারা বছরের পাশাপাশি বিশেষ করে শীতে ত্বকের যত্নে ময়েশ্চাইজার ব্যবহারের কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে।


প্রাথমিক ভাবে আমাদের স্কিনে ময়েশ্চারাইজারের কাজ আসলে কী?

১) ময়েশ্চারাইজারের প্রথম কাজই হলো, স্কিন ড্রাই হয়ে এলে তাতে পর্যাপ্ত আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করা।


২) ময়েশ্চারাইজারের প্রয়োজনীয়তা সকল স্কিনের জন্যেই অপরিহার্য। তবে ড্রাই স্কিনের জন্যে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই।


৩) ময়েশ্চারাইজার আমাদের স্কিনের বাইরে একটি লেয়ার তৈরি করে। এতে বাইরের ক্ষতিকর জীবাণু এবং ধুলাবালি সহজেই স্কিনের ক্ষতি করতে পারেনা।

৪) আমাদের স্কিনকে প্রাণবন্ত ও সতেজ রাখতে ময়েশ্চারাইজারের কোন তুলনা হয়না।


৫) আমাদের স্কিনের পিগমেন্টেশনের সমস্যা বা দাগ দূর করতে ময়েশ্চারাইজার কাজ করে থাকে।


ডেইলি স্কিন কেয়াররে ময়েশ্চারাইজার কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?

১) ইনস্ট্যান্ট ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে

বাহিরে ওয়েদার যেমনই হোক, বাহিরে থাকুন কিংবা ঘরের ভেতর, শীতকালে কিন্তু খুব দ্রুত স্কিন তার আর্দ্রতা হারায়। ময়েশ্চারাইজার মূলত আমাদের ত্বকের এই হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতাকে ইনস্ট্যান্ট ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। এর সাথে স্কিন রিলেটেড নানা সমস্যা রোধেও সহায়তা করে।


২) অ্যান্টি এজিং সমস্যা রোধে কাজ করে

খেয়াল করে দেখবেন, যাদের স্কিন তুলনামূলক ভাবে ড্রাই, তাদের অয়েলি স্কিনের মানুষদের তুলনায় বয়সের ছাপ বা বলিরেখা কিন্তু খুব দ্রুত পড়ে। তাই সমস্যা হওয়ার আগেই সমাধানে কাজ করাই বুদ্ধিমানের কাজ। তাইনা? প্রপারলি নিয়ম মেনে স্কিন কেয়ারে রুটিনে শুধুমাত্র এই ময়েশ্চারাইজার যুক্ত করার মাধ্যমে ভবিষ্যতের অনেক বড় বড় সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন নিমিষেই।

৩) সানট্যান বা সানবার্নের মত কঠিন সমস্যার সহজ সমাধান

শীতকালে আমাদের বেশিরভাগ মানুষেরই স্কিন রিলেটেড সমস্যা বহুগুণে বেড়ে যায়। ঘরোয়া নানা প্রচেষ্টাতো আছেই, এর পাশাপাশি ব্যবহার করি নানা রকম প্রোডাক্টও। কখনো বুঝে কখনো বা না বুঝেই। তবে বেশিরভাগ স্কিন স্পেশালিষ্টরাই কিন্তু এই সময়টায় সাজেস্ট করে এমন কিছু প্রোডাক্ট ইউজ করার, যা আমাদের ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর আলট্রাভায়োলেট রশ্মি থেকে সুরক্ষা দিতে পারবে। তাই এসপিএফ যুক্ত ময়েশ্চারাইজার হতে পারে আপনার সারাদিনের কঠিন সব সমস্যার সহজ একটি সমাধান।


ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করার সঠিক সময় কোনটি?

ময়েশ্চারাইজার এমন একটি প্রোডাক্ট যা শুধুমাত্র শরীরের কোন বিশেষ একটি অংশ নয়, বরং সারা শরীরের সুরক্ষার জন্যেই কাজ করে। কখন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করলে ভাল রেজাল্ট পাবেন তার অনেকটাই নির্ভর করে, কোথায় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করছেন তার উপরও।


১) সারা শরীরে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের জন্যে গোসলের পরের সময়টাই বেছে নেয়া উচিৎ। গোসলের পর পর স্কিন পুরোপুরি ক্লিন থাকে। তাই প্রোডাক্টের কার্যকারিতাও এ সময় সবচেয়ে বেশি থাকে।


২) ফেইসে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করার সবচেয়ে ভাল সময় হচ্ছে, প্রতিবার ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ক্লিন করার পরের সময়।


৩) তবে সবচেয়ে ভালো রেজাল্ট পেতে আমাদের মর্নিং স্কিন কেয়ার রুটিন এবং নাইট স্কিন কেয়ার রুটিনে অবশ্যই ময়েশ্চারাইজারটি রাখতেই হবে। বিশেষ করে শীতকালে এটি কোনভাবেই স্কিপ করা যাবেনা।

চলুন জেনে নেই, ময়েশ্চারাইজার নিয়ে বিশেষ কিছু টিপস

১) ত্বক ড্রাই থাকা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার না করাই ভাল। ত্বকে ভেজা ভাব থাকতে থাকতে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন।


২) ভাল রেজাল্টের জন্যে প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে এবং ঘুমাতে যাওয়ার আগে দুই বেলা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করার অভ্যাস গড়ে তুলুন।


৩) শীতকালে অনেকেই অভিযোগ করে থাকেন, স্কিন অনেক বেশি ড্রাই হওয়ায় অন্যান্য প্রোডাক্টস ভালভাবে বসেনা এবং ভেসে ভেসে থাকে। এ সমস্যার সমাধানে মুখ ভাল ভাবে ক্লিন করে আগেই ময়েশ্চারাইজার অ্যাপ্লাই করে নিন। এতে পরে ব্যবহার করা প্রোডাক্টগুলো আর ভেসে থাকবেনা।


৪) যারা রেগুলার বাহিরে যাই এবং মেকআপ ব্যবহার করতে পছন্দ করি, তারা অবশ্যই ডাবল ক্লেনজিং করার পর সাথে সাথে স্কিন টাইপ বুঝে একটি ভাল ময়েশ্চারাইজার অ্যাপ্লাই করে নিবেন।

প্রাকৃতিক নিয়মেই ঋতুও পরিবর্তন হবে, তেমনি থাকবে নানা সমস্যাও। তাই বলে কি এর কোন সমাধান নেই? চিন্তার কোন কারণ নেই! এই সময়ে কিছু প্রোডাক্ট যা আমাদের সাথে না রাখলেই নয়। তাদের মধ্যে অন্যতম হলো, এই ময়েশ্চারাইজার বা লোশন। আশা করছি, আজকের আর্টিকেলটির মাধ্যমে ময়েশ্চারাইজার নিয়ে আপনাদের কিছুটা হলেও বেসিক ধারণা দিতে পেরেছি।


স্কিন ও হেয়ার কেয়ারের জন্য অথেক্টিক প্রোডাক্ট আপনারা চাইলে সাজগোজের দুটি ফিজিক্যাল শপ ভিজিট করতে পারেন, যার একটি যমুনা ফিউচার পার্ক ও অপরটি সীমান্ত স্কয়ারে অবস্থিত। আর অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন। সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন, সুন্দর থাকবেন।

Powered by Blogger.